ব্যাংক

ডলার ভাঙ্গার সহজ উপায়-2022

বিদেশি পর্যটকেরা ফেরত যাওয়ার সময় যে কোনো মানি চেঞ্জার থেকে অব্যবহৃত টাকা ডলারে পরিবর্তন করতে পারবেন। তবে এই সীমা ৫০০ ডলার পর্যন্ত।

এর আগে নিয়ম ছিল, বিদেশি পর্যটক যে মানি চেঞ্জার মুদ্রা বদল করে টাকা নিয়েছিলেন, ফেরার পথে শুধু সেই মানি চেঞ্জারেই টাকা ফেরত দিয়ে ডলার করতে পারবেন। এর ফলে অনেক বিদেশি অব্যবহৃত টাকা নিজ দেশে ফেরত নিয়ে যেতেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ আজ মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে দেশের সকল মানি চেঞ্জার প্রতিষ্ঠান ও অনুমোদিত ডিলার (এডি) ব্যাংকগুলোর কাছে পাঠিয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন-২০০৯ আইনে নিবন্ধিত মানি চেঞ্জার প্রতিষ্ঠানগুলো বিদেশি পর্যটকদের অব্যবহৃত টাকার বিপরীতে সর্বোচ্চ ৫০০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত নগদ পরিশোধ করতে পারে। আগের নিয়ম অনুযায়ী যে মানি চেঞ্জার প্রতিষ্ঠান থেকে ডলার ভাঙিয়েছিল, সেই প্রতিষ্ঠান থেকেই ভাঙানোর সুযোগ ছিল।

কিন্তু এখন থেকে নিবন্ধিত মানি চেঞ্জার থেকে ডলার ভাঙানোর প্রমাণপত্র দেখিয়ে যেকোনো মানি চেঞ্জারে গিয়ে ডলার গ্রহণ করা যাবে। সে ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মানি চেঞ্জারকে বিদেশি পর্যটকের ডলার ভাঙানো আসল প্রমাণপত্র সংরক্ষণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সহজ হলো ডলার এনডোর্সমেন্ট

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের সার্কুলারে বলা হয়েছে, পাসপোর্টের মেয়াদ যত বছর থাকবে, তত বছরের জন্য একসঙ্গে বৈদেশিক মুদ্রা এনডোর্সমেন্ট করা যাবে। তবে বাৎসরিক সীমা ১২ হাজার ডলার অতিক্রম করতে পারবে না। ভ্রমণ কোটার অব্যবহৃত অংশ পরবর্তী বছরে স্থানান্তর করা যাবে না।

বি‌দেশ ভ্রমণে ডলার এনডোর্সমেন্ট সহজ করে‌ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন থে‌কে পাসপোর্টের মেয়াদ যত‌ বছর থাক‌বে, তত বছ‌রের জন্য একস‌ঙ্গে বৈ‌দে‌শিক মুদ্রা এনডোর্সমেন্ট করা‌ যা‌বে। তবে নিয়ম অনুযায়ী বছরে ১২ হাজার ডলারের বেশি খরচ করতে পারবে না।

বৃহস্প‌তিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ এ সার্কুলার জারি করেছে।

সার্কুলারে বলা হ‌য়ে‌ছে, অনুমোদিত ডিলার (এডি) ব্যাংকসংশ্লিষ্ট নিবাসী বাংলাদেশি ব্যক্তির অনুকূলে তার পাসপোর্টের মেয়াদ থাকাকালীন আন্তর্জাতিক কার্ডে বৈদেশিক মুদ্রা ছাড় ও নির্ধারণ করতে পারবে। ত‌বে এডি ব্যাংককে নির্দিষ্ট কয়েকটি শর্ত মেনে চলতে হবে।

বাৎসরিক সীমা ১২ হাজার ডলার অতিক্রম কর‌তে পার‌বে না। ভ্রমণ কোটার অব্যবহৃত অংশ পরবর্তী বছরে স্থানান্তর করা যাবে না।

এ ছাড়া বিদেশে চাকরি ও ইমিগ্র্যান্ট হিসেবে কিংবা শিক্ষার জন্য বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে পাসপোর্টের মেয়াদকালীন এনডোর্সমেন্ট করা যাবে না বলে সার্কুলারে বলা হয়েছে।

তবে সম্পূরক কার্ডধারী ব্যক্তি তার ভ্রমণ কোটার আওতায় এ সুবিধা পাবে।

বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভ্রমণ কোটা প্রযোজ্য হয়ে থাকে। তবে নির্দিষ্ট ভ্রমণ পরবর্তী বছরের মধ্যে পড়লে ৩১ ডিসেম্বর সময় পর্যন্ত একটি কোটা এবং ১ জানুয়ারি থেকে অন্য বছরের কোটা ব্যবহার করতে হবে।

পাসপোর্টের মেয়াদ থাকাকালীন বৈদেশিক মুদ্রা ছাড় বা নির্ধারণ সুবিধা গ্রহণ করা না হলে কার্ডের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা ছাড়ের ক্ষেত্রে ঘটনাত্তর এনডোর্সমেন্ট করার সুবিধা রাখা হয়েছে।

যৌক্তিক কারণে কার্ডের মাধ্যমে ভ্রমণ ব্যয় বাৎসরিক কোটা সীমা অতিক্রম করলে ওই অর্থ গ্রাহকের নিবাসী বৈদেশিক মুদ্রা হিসাবের স্থিতি দ্বারা সমন্বয়ের সুযোগ রাখা হয়েছে। এ জাতীয় হিসাব না থাকলে পরবর্তী বছরের ভ্রমণ কোটার সঙ্গে সর্বোচ্চ ৫০০ ডলার সমন্বয় করা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.