বিনেদন

পরীমণির বিষয়ে শিল্পী সমিতির মিথ্যাচার, ক্ষুব্ধ নায়ক আলমগীর!

পরীমণির বিষয়ে তাকে নিয়ে মিথ্যাচার, ক্ষুব্ধ নায়ক আলমগীর!

ঢাকা, ২৮ আগস্ট – মাদক মামলায় গ্রেফতার চিত্রনায়িকা পরীমনির বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্যপদ স্থগিত করা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

প্রশ্ন উঠেছে— মামলায় অভিযুক্ত এই সমিতির অন্য সদস্যদের বিরুদ্ধে এমন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি অথচ পরীমনির সদস্যপদ ঠিকই স্থগিত করা হয়েছে।

এমন সিদ্ধান্তের বিষয়ে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘এ সিদ্ধান্ত একা নেওয়ার কেউ নন তিনি। পরীমনির বিষয়ে সিদ্ধান্তটি কমিটির ২১ সদস্য মিলে নিয়েছেন। যাদের মধ্যে আলমগীর, ইলিয়াস কাঞ্চন, সোহেল রানার মতো চলচ্চিত্রের জ্যেষ্ঠ শিল্পীরা রয়েছেন।

তবে সাম্প্রতিক অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে যে, ইলিয়াস কাঞ্চনের পরামর্শ একদমই কানে নেয়নি শিল্পী সমিতি। অন্যদিকে আলমগীরের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথাই বলেনি কেউ। গণমাধ্যমের কাছে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

আলমগীর বলেন, ‘শিল্পী সমিতির বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদ কিংবা সমিতির কোনো সদস্যের সঙ্গেই এই বিষয়ে আমার কোনো কথা হয়নি। কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগও করেননি। আমি এই সমিতির নির্বাহী পরিষদ বা উপদেষ্টা পরিষদের কেউ নই। কেবল সাধারণ একজন সদস্য। সুতরাং আমার সঙ্গে কথা বলার কোনো কারণও নেই। কিন্তু এতে আমার নাম কেন জড়ানো হলো, তা আমার বোধগম্য নয়। শিল্পী সমিতির কোনো কর্মকর্তা যদি আমার নাম বলে থাকে, সেটা অন্যায়। এটা চরম মিথ্যাচার।’

সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানিয়ে আলমগীর বলেন, ‘এমন একটি বহুল চর্চিত ও সমালোচিত ইস্যুতে মিথ্যাভাবে আমার নাম জড়ানোতে সত্যিই আমি বিব্রতবোধ করছি। দয়া করে ভবিষ্যতে কেউ কোনো বিষয়ে আমার নাম ব্যবহার কিংবা আমাকে জড়িয়ে এমন মিথ্যা, অসত্য ও বিব্রতকর তথ্য গণমাধ্যমের কাছে প্রকাশ করবেন না।’

এদিকে সিনিয়র শিল্পীদের মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পর জায়েদ খান বলেছেন, তারা কেবল সিনিয়রদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাদের মতামত মেনে নেওয়ার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। পরীমণির সদস্যপদ স্থগিতের সিদ্ধান্তটি নিয়েছে সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.