Google AdSense

ব্লগিং কিভাবে শুরু করা যায়-ব্লগ তৈরি করার সকল গাইডলাইন?

ব্লগিং কিভাবে শুরু করবো? ব্লগ তৈরি করার সকল গাইডলাইন?

ব্লগিং/Blogging বর্তমান সময়ে খুব জনপ্রিয় একটি মাধ্যম যেখানে আপনি আপনার জ্ঞান, মত ও তথ্য এবং আপনার জানা প্রিয় জিনিস নিয়ে আলোচনা করতে পারবেন, অর্থাৎ আপনি যে বিষয়টির উপর বেশি দক্ষ ঐ বিষয়টি ইন্টারনেটের মাধ্যমে মানুষের মাঝে প্রকাশ করার একটি বড় প্লাটফর্ম হলো ব্লগিং।

বর্তমানে মানুষ ব্লগিংকে পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছে এবং ব্লগিং করে অনেক অর্থ আয় করছে। আপনি ব্লগিংয়ের মাধ্যমে আপনার দক্ষতা এবং তথ্য মানুষের সাথে শেয়ার করে, গুগল এডসেন্স এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে প্রচুর ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন।

আমাদের আজকের আর্টিকেল এ কি কি থাকছেঃ

  1. ব্লগিং/ব্লগ কি?
  2. ব্লগার কারা?
  3. ব্লগিং শুরু করার পূর্বে আপনার যা জানা প্রয়োজন?
  4. Blogging/ব্লগিং কেন করবেন?
  5. ব্লগিং শুরু করার ধাপ সমূহ?
  6. বাংলায় ব্লগিং শুরু করবো না ইংরেজিতে?
ব্লগিং/ব্লগ কি?

ব্লগ হলো একটি অনলাইন ভিত্তিক ওয়েব পৃষ্টা যেখানে অনেকগুলো পোস্ট, ছবি ও ভিডিও, হার্ড কপির নথি এবং অন্যান্য তথ্য সংবলিত ওয়েব পেইজ থাকে। অর্থাৎ ব্লগকে আমরা ডায়েরি বা জার্নাল এর সাথে তুলনা করতে পারি। যেখানে একজন ব্লগার তারা ব্যক্তিগত দক্ষতা ও ইচ্ছা প্রকাশ করে থাকেন।

blog শব্দটি weblog এর সংক্ষিপ্ত রুপ। ইন্টারনেটে সংযোগ হয়ে আপনি blog তৈরি বা অন্যান্য blogger দের কন্টেন্ট পড়তে পাবেন। সুতরাং ব্লগিংকে আমরা বলতে পারি এটি একটি লেখার কাজ।

ব্লগিং শুরু করার পূর্বে আপনার যা জানা প্রয়োজন?

ব্লগিং শুরুর পূর্বেই আপনাকে একটি কোর্স করে নিতে হবে যেমন: ওয়ার্ডপ্রেস, এসইও সম্পর্কে ভালোভাবে ধারণা থাকা লাগবে। আমাদের দেশের অনেক প্রতিষ্ঠান এ ধরণের অনেক কোর্স প্রদান করছে কম খরচে যেমন: বিআইটিএম ও ক্রিয়েটিভ আইটি ইত্যাদি। আপনি চাইলে ইউটিউব থেকেও এইগুলো শিখতে পারবেন।

ব্লগিং শুরু করার ধাপ সমূহ?

  1. একটি ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম/ বিষয়বস্তু বেছে নিন
  2. একটি ডোমেন নাম এবং ওয়েব হোস্টিং নির্ধারণ করুন
  3. ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করুন
  4. ওয়ার্ডপ্রেস থিম পছন্দ করুন এবং ব্লগ ডিজাইন করুন
  5. প্রয়োজনীয় ব্লগিং প্লাগইন ইনস্টল করুন
  6. আপনার ব্লগ চালু করুন
  7. আপনার ব্লগ প্রচার করুন
  8. ব্লগটিকে গুগল এডসেন্স এর জন্য মনিটাইজ করুন

একটি ব্লগিং টপিক/ বিষয়বস্তু বেছে নিনঃ

ব্লগিং শুরু করার জন্য সর্বপ্রথম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তটি হলো আপনি কোন বিষয়টি নিয়ে লিখতে চাচ্ছেন বা কোন টপিক নিয়ে ব্লগ শুরু করতে চাচ্ছেন। ব্লগিং এর টপিক বা বিষয়বস্তু বেছে নেওয়া সহজ উপায় হলো আপনার যে বিষটি সম্পর্কে ভালো ধারণা বা দক্ষতা আছে সেটি দিয়ে শুরু করা। আপনি যদি কোনও নির্দিষ্ট বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হন তবে এটি আরও ভাল। মানসম্পন্ন কন্টেন্ট লেখার মাধ্যমে আপনার ব্লগকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে এবং ভিজিটর বাড়াতে পারবেন।

ব্লগিং কিভাবে শুরু করা যায়-

ব্লগিং কিভাবে শুরু করা যায়

কিভাবে ব্লগিং শুরু করবেন?
এখন এত কিছু জানলে আপনার মনে অনেক প্রশ্ন জাগতে পারে। তবে সবার আগে আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, আমি কিভাবে ব্লগিং শুরু করব?

তাহলে শুনুন, আপনি যখন এই সেক্টরে যুক্ত হতে চান। তারপরে আপনি যোগ দিতে পারেন কারণ ব্লগিংয়ের দরজা সবসময় সবার জন্য খোলা থাকে।

তবে আপনি শুরু করার আগে, বেশ কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আসলে যে বিষয় লিখতে চাইবেন . আপনাকে আগে থেকেই নির্ধারণ করতে হবে।

তারপর আপনি আসলে যে কোনো মাধ্যমে ব্লগ করতে চান. আপনি এটি নির্বাচন করতে হবে.

সাধারণত দুটি মাধ্যম আজকাল খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। যেমন

গুগল ব্লগার

ওয়ার্ডপ্রেস

আপনিও যদি ব্লগিং করে আয় করতে চান। তারপর আপনাকে উপরের যে কোনো একটি উপায় বেছে নিতে হবে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, “আপনি ব্লগিং শুরু করতে কোন প্লাটফর্ম ব্যবহার করবেন”? তাই হালকা আলোচনা করা যাক.

ব্লগিং শুরু করতে কত খরচ হয়?

প্রথম দিকে ব্লগিং করার জন্য খরচ করার প্রয়োজন নেই. আপনি চাইলে কোন প্রকার টাকা খরচ না করে ব্লগ শুরু করতে পারেন। তারপরও আপনি সহজেই একটি ব্লগ তৈরি করতে পারেন।

কিন্তু আপনি যদি চান আপনার ব্লগটা আরেকটু প্রফেশনাল হোক। তাহলে শুরুতেই কিছু পরিমাণ টাকা খরচ করতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, প্রথমে আপনাকে আপনার ব্লগের জন্য একটি ডোমেইন কিনতে হবে। যার দাম প্রায় ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা।

তারপর আপনি চাইলে আপনার ব্লগের সকল ডাটা নিজের কাছে রাখতে পারেন। তাহলে আপনাকে হোস্টিং কিনতে হবে।

যাইহোক, হোস্টিং খরচ পরিবর্তিত হয়. এটা নির্ভর করবে আপনি আসলে কতটা স্টোরেজ ব্যবহার করেন তার উপর।

তবে শুরুতে আপনি 2GB- 5GB স্টোরেজ হোস্টিং নিয়ে কাজ চালিয়ে যেতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে খরচ করতে হবে 1500 থেকে 3000 টাকা।

ফ্রি ব্লগ সাইট কি ভাবে বানাব

ফ্রি ব্লগ সাইট বানানোর জন্য ব্লগার এবং ওয়ার্ডপ্রেস দুইটি জনপ্রিয় মাধ্যম। আমরা আজকে দেখব ব্লগার ব্যবহার করে ফ্রি ব্লগ সাইট কি ভাবে তৈরি করা যাবে।

প্রথম Step: Blogger লিংকে ক্লিক করলে নিচে মত একটি ওয়েবসাইট আসবে।

ব্লগ সাইট কিভাবে বানাব

আর একটি বিষয়, আপনার জিমেইল একাউন্ট না থাকলে তা আগে থেকে তৈরি করে নিতে হবে। কারন উপরে উল্লেখ করা স্থানে ক্লিক করার আগে জিমেইল একাউন্টে সাইন ইন করা থাকতে হবে। অবশ্য এই পেজে আসার পরেও জিমেইলে সাইন ইন করা যায়।

দ্বিতীয় Step: জিমেইল সাইন ইন করার পর নিচের ছবি টা দেখতে পাবেন। নিচের ছবির নির্দশনা অনুযায়ি তথ্য গুলো পূরণ করে পরর্বতী বাটনে ক্লিক করুন।

ব্লগ সাইট টাইটেল লিখুন

তৃতীয় Step: আপনার ব্লগের ঠিকানা লিখতে হবে। আপনি যে কোন নাম দিয়ে আপনার ব্লগ সাইটের এ্যাড্রেস তৈরি করতে পারবেন তবে সেই এ্যাড্রেসটি যেন আগে কেউ ব্যবহার করে না থাকে।

একটা উদাহরন দেওয়া যাকঃ আমি একটি ব্লগ সাইটের এ্যাড্রেস দিয়েছি মাইবিডিব্লগ। এবার আপনি একটি ব্লগ এ্যাড্রেস দিতে চাচ্ছেন মাইবিডিব্লগ দিয়ে। কিন্তু আমি প্রথমে মাইবিডিব্লগ নামটি ব্যবহার করার কারনে আপনি দ্বিতীয় বার তা ব্যবহার করতে পারবেন না। আবার আপনি প্রথমে ব্যবহার করলে আমি দ্বিতীয় বার ব্যবহার করতে পারব না।

ব্লগিং ইতিহাস

আপনি গুগলে সার্চ করে ব্লগ সাইটের নাম তৈরি করার ক্ষেত্রে সাজেশন নিতে পারেন। এবার নিচের ছবিটির দিকে লক্ষ করুন।

ব্লগ সাইটের নাম লিখুন

চতুর্থ Step: চতুর্থ স্টেপ ব্লগ সাইট বানানোর শেষ কাজ। এই কাজটি শেষ করার মাধ্যমে ব্লগসাইট বানানোর অভ্যন্তরিন করা শুরু করতে হয়।

ডিসপ্লে নাম ব্লগ সাইটের সবার জন্য উন্মুক্ত, যা সকল ভিজিটর দেখতে পাবে।

ব্লগ ডিসপ্লে নাম

উপরের স্টেপটা শেষ করলেই নিচের ব্লগ ড্যাশ বোর্ডটি দেখতে পারবেন। এই ড্যাশ বোর্ড ব্যবহার করে আপনি আপনার ব্লগ সাইটের সব কিছু মেইনটেইন করতে পারবেন।

ব্লগিং করে আয় করার উপায়

ব্লগ সাইটের ড্যাশ বোর্ড

Blog Site Dashboard

উপরের ড্যাশবোর্ডে উল্লখ করা প্রতিটি বিষয় নিচে আলোচনা করা হল। এবং লেখার শেষে একটি সম্পূর্ণ ভিডিও দেওয়া থাকবে ব্লগ সাইট কিভাবে বানাবেন তার উপর।

ব্লগ থিমঃ

ব্লগারে বিভিন্ন ধরনের থিম আছে আপনি যে কোন একটি থিম নির্বাচন করে ব্লগিং শুরু করতে পারেন। ব্লগারে থিমের জন্য কোন ধরনের পেমেন্ট করতে হবে না। আপনার ইচ্ছা মত যে কোন একটি থিম নির্বাচন করে ব্লগিং শুরু করতে পারবেন।

আরো পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.