হাসপাতাল

হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতাল।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্বাভাবিক চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ২০ সেপ্টেম্বর রোববার থেকে নতুন আঙ্গিকে হাসপাতালের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু করে হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এখন থেকে সবধরনের রোগী এই হাসপাতালের ভর্তি, জরুরি ও বহির্বিভাগে চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারবেন।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সার্বক্ষণিক খোলা রয়েছে। অতি মুমূর্ষু যেকোন রোগী রাতদিন ২৪ ঘণ্টা সেখান থেকে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

এছাড়াও প্রতিদিন সকালে আউটডোরে ও বিকেলে স্পেশালাইজড চিকিৎসকরা নিয়মিত রোগী দেখছেন। এই হাসপাতালে জীবাণুমুক্ত পরিবেশে রোগীদের সবধরনের চিকিৎসা ও টেস্টের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।

এই হাসপাতালে বহি:বিভাগে বিশেষজ্ঞডাক্তারগণ রোগীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করে থাকেন। প্রথমবার রোগীকে ডাক্তার দেখানোর জন্য ৩০০ টাকা মূল্যের একটি কার্ড সংগ্রহ করতে হয়। পরবর্তী ১ (এক) বছর এই কার্ডদেখিয়ে মাত্র ১০০ টাকা ভিজিট দিয়ে ডাক্তার দেখানো যায়। এখানে মেডিসিন, সার্জারী, গাইনী, অর্থোপেডিক, শিশু রোগ, চক্ষু, নাককানগলা, কার্ডিওলজি, নিউরো সার্জারী, নিউরো মেডিসিন, কিডনি, মানসিক রোগ, ডায়বেটিস, চর্ম রোগ, ইউরোলজি সহ মোট ১৭টি বিভাগের অধীনে প্রতিদিন রোগীদের চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

অবস্থান:

মগবাজার ওভারব্রীজ থেকে ১০০ গজ পশ্চিম দিকে ইস্কাটন গার্ডেন রোড-এ এটি অবস্থিত।

যোগাযোগ: ৮৩১১৭২১-৫

এই হাসপাতালের নিজস্ব ৪টি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে। যোগাযোগ: ৮৩১১৭২১-৫।

বৃহস্পতিবার হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভবনে অনুষ্ঠিত মৃতদেহ সংরক্ষাণাগারের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান হাফিজ আহমদ মজুমদার।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ভাইস চেয়ারম্যান ও আইএফআরসির গভর্নিং বোর্ডের সদস্য প্রফেসর ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত, সোসাইটির ট্রেজারার লুৎফুর রহমান চৌধুরী হেলাল, পাবলো পের্চেলসি, আইসিআরসি বাংলাদেশ হেড অব ডেলিগেশন ও মি. হেনিং ক্রাউসে, আইসিআরসি বাংলাদেশ প্রটেকশন কোঅর্ডিনেটর।

হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কর্তৃপক্ষ জানায়, এই হিমঘর একটি ৪০ ফুট রেফ্রিজারেটেড স্টোরেজ কন্টেইনার থেকে তৈরি হয়েছে। এখানে লাগানো হয়েছে উন্নত মানের স্টিলের ফ্রেম, যেন তা সর্বোচ্চ ৪০টি মরদেহ ধারণ করতে পারে।

ইউনিটটিতে দেহগুলো সার্বক্ষণিক ৪-৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সংরক্ষণ করা হবে, যেন বাংলাদেশের আর্দ্র আবহাওয়ায় নষ্ট না হয়। এর ফলে প্রত্যেকের সুরক্ষা এবং মর্যাদা নিশ্চিত করে হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এখন থেকে মরদেহ নিরাপদে সংরক্ষণ করতে পারবে। এছাড়া মৃতদেহ শনাক্তকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত এই হিমাগারে মৃতদেহ নিরাপদ এবং ধর্মীয় মর্যাদার সাথে সংরক্ষণ করা হবে।

এর আগে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি ও আইসিআরসির মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব মো. ফিরোজ সালাহ্ উদ্দিন ও আইসিআরসি বাংলাদেশ হেড অব ডেলেগেশন পাবলো পের্চেলসি নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর করেন।

হারুন আই হসপিটাল

এ হাসপাতালে আলাদা আউটডোর নেই। কেবল বিভিন্ন চক্ষু চিকিৎসকের  কনসাল্টেশন সার্ভিস রয়েছে। বিভিন্ন চিকিৎসককে দেখানোর নিয়ম বিভিন্ন। কোন চিকিৎসককে দেখাতে চাইলে শুক্রবার সশরীরে গিয়ে সিরিয়াল নিতে হয় (কেবল শুক্রবারে পুরো সপ্তাহের সিরিয়াল দেয়া হয়)। আবার অনেক চিকিৎসককে দেখাতে চাইলে ফোনে সিরিয়াল দিলেই চলে।

অবস্থান

ধানমন্ডির মিরপুর রোডে অবস্থিত গণ স্বাস্থ্য হাসপাতাল থেকে ১০ গজ দক্ষিণে হারুন আই হসপিটাল অবস্থিত।

ঠিকানা

বাড়ি# ১২/এ, রোড# ৫, মিরপুর রোড ধানমন্ডি, ঢাকা- ১২০৫

মোবাইল নম্বর: ০১৫৫২-৩৯৭৫১৮, ০১৫৫২-৩৯৭৫১৭

অনুসন্ধান৯৬১৩৯৩০-৩৪, ৮৬১৯০৬

আরো পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.