সংবাদ

হেলেনা জাহাঙ্গীর চারটি মামলায় 14 দিনের রিমান্ডে নিয়েছে।razuaman

আওয়ামী লীগ থেকে পদ হারানো হেলেনা জাহাঙ্গীরকে বিভিন্ন আইনে করা চার মামলায় ১৪ দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার আদালতের জেনারেল রেজিস্ট্রার অফিসার (জিআরও) সূত্রে এ তথ্য জানা  গেছে।  সূত্র জানায়, ডিবির  পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও)  শফিকুর রহমান আজ মঙ্গলবার হেলেনা জাহাঙ্গীরকে  আদালতে হাজির করেন এবং দুই মামলায় ১৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গুলশান থানায় করা মামলায় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসী হেলেনা জাহাঙ্গীরের  রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জিটাল নিরাপত্তা এবং মাদকবিরোধী আইনের অধীনে দুটি পৃথক মামলায় সম্প্রতি আওয়ামী লীগের উপকমিটি থেকে বরখাস্ত হওয়া ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে হেফাজতে রাখার জন্য পুলিশকে আরও ছয় দিন সময় দেওয়া হয়েছে।

হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য ছিলেন। তবে, গত ২৫ জুলাই উপকমিটির দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে সেই পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়। গত ৩০ জুলাই রাত ৮টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় র‍্যাবের অভিযানের পর ৩১ জুলাই ভোররাত সোয়া ১২টার তাকে আটক করা হয়। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মিথ্যাচার ও সম্মানহানির অভিযোগে তার বাসায় ওই অভিযান চালানো হয়।

এর আগে, মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমান অন্য দুটি মামলায় হেলেনাকে আট দিনের হেফাজতে পাঠান, যার মধ্যে একটি চাঁদাবাজির অভিযোগ এবং অন্যটি টেলিযোগাযোগ আইনে।
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় তিন দিনের রিমান্ড শেষে হেলেনাকে আদালতে হাজির করা হয়।
এই মামলায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ 10 দিনের সময় চেয়েছিল। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী শনিবার তাকে মাদক সংক্রান্ত অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আদেশের জন্য আবেদন করে। আসামিপক্ষের আইনজীবী শফিকুল ইসলাম হেলেনার জামিন চেয়ে রিমান্ড আবেদনের বিরোধিতা করেন।

তিনি আদালতকে বলেছিলেন যে হেলেনাকে হয়রানি অভিযানের অংশ হিসাবে এই মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। জামিন আবেদনের সমর্থনে আইনজীবী তার স্বাস্থ্যের সমস্যা, বিশেষ করে তার উচ্চ ডায়াবেটিসের মাত্রা উল্লেখ করেছেন। পাবলিক প্রসিকিউটর আবদুল্লাহ আবু এবং অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন /

সোমবার ভোলার বাসিন্দা আব্দুর রহমান তুহিন পল্লবী থানায় চাঁদাবাজির মামলা শুরু করেন।

 একই থানায় তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন ও টেলিযোগাযোগ আইনে করা অপর একটি মামলায় আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এছাড়া, পল্লবী থানায় করা একটি প্রতারণার মামলাসহ দুই মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে অপর একটি আদালতে হাজির করে সাত দিন করে রিমান্ড আবেদন করা হলে, মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমান আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পল্লবী থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. ইয়ামিন কবির ও উপপরিদর্শক মো. আল হেলাল ওই দুই মামলায় তার রিমান্ড প্রার্থনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.