সংবাদ

‎আফগানিস্তানের ইতিহাস · ‎তালিবান উইকিপিডিয়া

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে নেয়ার একদিন পর ফুরফুরে মেজাজে দেখা গেছে তালেবানদের। সোমবার সোশ্যাল মিডিয়ার ভিডিওতে দেখা গেছে, তালেবান সদস্যরা বিনোদন কেন্দ্রে বিভিন্ন রাইডে চড়েছেন। কাবুল ভিত্তিক রয়টার্সের সাংবাদিক হামিদ শালিজি ওই ভিডিও টুইটারে শেয়ার করেন। খবর নিউজ এইটিনের। সেখানে দেখা যায়, তালেবান যোদ্ধারা ইলেকট্রিক বাম্পার গাড়িতে চড়ে আনন্দ করছে। এসময় অনেকের হাতে বন্দুক ধরে থাকতে দেখা যায়।

আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, তালেবান যোদ্ধারা বিনোদন পার্কের ঘোড়ায় চড়ে আনন্দ করছে। অন্য আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, জিমে গিয়ে ওয়ার্কআউট করছে তালেবান সদস্যরা। আসলে তালেবানরা আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর থেকেই বেশ কিছু ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। একটি ভিডিওতে দেখা যায়, রিপোর্টারের মাইক্রোফোন নিয়ে মানুষজনকে তালেবান সদস্যরা জানতে চাই যে, তাদের ‘শাসন’ কেমন?

মার্কিন নেতৃত্বাধীন নেটো বাহিনী আগামী ৩১ আগস্ট আফগানিস্তান থেকে চলে যাওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর মে মাসে ব্যাপক অগ্রাভিযান শুরু করে।

সবশেষ গত দুই সপ্তাহ আগে ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করে তালেবান। শেষ পর্যন্ত মাত্র ১০ দিনের মধ্যে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে নেয় তারা।
আফগানিস্তানে নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর প্রথমবারের মতো গণমাধ্যমের মুখোমুখি হলে তালিবানি রাজধানী কাবুলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া বক্তব্যে সরকার গঠন এবং রাষ্ট্রপরিচালনায় তালেবানি বিভিন্ন প্রকল্প

জাপানি কে সময় দেয়া বক্তব্যে সরকার গঠন এবং রাষ্ট্রপরিচালনায় তালেবানের বিভিন্ন পরিকল্পনা কথা তুলে ধরেন সামিউল্লাহ পতিতা । তালেবানের বিরুদ্ধে করেছে তাদের ক্ষমা করা হচ্ছে । এবং আদর্শের অনুসারী দেশকে নিয়ে সরকার পরিচালনা করতে চায় তালেবান নেতার প্রতি আগ্রাসী আচরণ করবে না । তবে সরকার পরিচালনা করেছেন অংশ হতে পারবেন স্বাস্থ্যসম্মত থাকবে নারীদের জন্য জঙ্গিবাদের তালেবান মুখপাত্র বলেন । ভূমি ব্যবহার করে কোনো গোষ্ঠীকে সসস্ত্র কার্যক্রম পরিচালনা করতে দেয়া হবে না

20 বছর আগে যে ধারণার ভিত্তিতে আমরা সরকার পরিচালনা করেছিলাম এবার তেমন ভাবে না সম্পূর্ণ পরিবর্তিত চিন্তা নিয়ে তালেবানের আফগান সরকার পরিচালনা করবেন হত্যাযজ্ঞ লুটতরাজ কিংবা অন্য কোনো অন্যায় কে প্রশ্রয় দেবো না আমরা জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে মূল উদ্দেশ্য

কাবুলে নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে লড়াই করবে নাকি আত্মসমর্পণ করবে এই কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি এখন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট।

বিপর্যস্ত দেশটি থেকে নিজেদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেয়ার জন্য ৫০০০ সৈন্য পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে আমেরিকা।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আফগানিস্তান থেকে ইউএস সৈন্য সরিয়ে আনার সিদ্ধান্তে পক্ষে বলেন, “অন্য দেশের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব মেটাতে অনন্তকাল ধরে কোন দেশে আমেরিকার অবস্থান জানান দেয়ার সমর্থন করা যায় না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.